‘ড্রাইভার মালেকের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা নেই’

পুলিশ বেষ্টনীতে আদালতে ড্রাইভার আবদুল মালেক। ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

স্বাস্থ্য অধিদফতরের বরখাস্ত গাড়িচালক আবদুল মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের সঙ্গে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর বা অধিদফতরের মহাপরিচালকের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের দায় তার ব্যক্তিগত।

বুধবার স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মোস্তফা খালেদ আহমেদ স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, আবদুল মালেককে গত ১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে প্রেষণে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরে ন্যস্ত করা হয়। প্রতিষ্ঠার সময় থেকে এ পর্যন্ত স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরে কোনো ধরনের কেনাকাটা, কর্মচারী নিয়োগ, পদায়ন বা পদোন্নতির কাজ করেনি।

কাজেই গাড়িচালক মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের সঙ্গে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর বা স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের কোনো পরিবহন পুলও নেই। মালেকের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগের দায় তার ব্যক্তিগত।

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের অধীনে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতর গঠিত হয়। অধ্যাপক ডা. এএইচএম এনায়েত হোসেন গত ৩১ ডিসেম্বর মহাপরিচালক হিসেবে যোগদান করেন। মালেককে গত ১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে প্রেষণে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরে ন্যস্ত করা হয়।

উলে­খ্য, গত ২১ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক প্রশাসন ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম স্বাক্ষরিত এক আদেশে আবদুল মালেককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আদেশে বলা হয়, যেহেতু স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাড়িচালক (প্রেষণে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরে কর্মরত) আবদুল মালেককে ২০ সেপ্টেম্বর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গ্রেফতার করেছে, সেহেতু বিএসআর পার্ট-১ এর ৭৩ বিধি (নোট-২) ধারা মোতাবেক ওই দিন থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হল। সাময়িক বরখাস্তের সময় তিনি আইন অনুযায়ী খোরপোষ ভাতা পাবেন।

বিডি/জা/র/