থানায় বিস্ফোরণের ঘটনায় জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা নেই : ডিএমপি

পল্লবী থানা ভবন পরিদর্শনের পর আজ বুধবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়। ছবি: প্রতিনিধি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকা মহানগর পুলিশের পল্লবী থানার ভেতরে ‘ওজন মাপার যন্ত্র’ বিস্ফোরণের ঘটনায় কোনো জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা নেই বলে জানিয়েছে ডিএমপি। আজ বুধবার পল্লবী থানা ভবন পরিদর্শনের পর এ কথা জানিয়েছেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়।

কৃষ্ণপদ রায় বলেছেন, ‘এখন পর্যন্ত প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, যে তিনজনকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি তারা কোনো জঙ্গি গ্রুপের সদস্য নয়। তারা কোনো না কোনো ক্রিমিনাল গ্রুপের সদস্য। ওজন মেশিনসদৃশ বস্তু যা ছিল সেটার ভেতরেই এই এক্সপ্লোসিভগুলো ছিল।’

অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, ‘এ অঞ্চলে মাঝেমধ্যেই ক্রাইম হয় নানা ধরনের। পল্লবী থানা পুলিশ ও মিরপুরের ডিবির নেতৃত্বে একটা টিম কাজ করছিল কয়েকদিন ধরে। একটি গ্রুপ ক্রাইম করতে পারে বা ক্রাইম হতে পারে, এমন তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টার দিকে কালশী কবরস্থান এলাকায় অভিযানে যায় পুলিশের একটি টিম। সেখান থেকে তিনজনকে আটক করে পুলিশ। পুলিশের কাছে খবর ছিল, সেখানে একটি সংঘবদ্ধ গ্রুপ সমবেত হয়ে ক্রাইম করার পরিকল্পনা করছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন রফিকুল ইসলাম, শহীদুল ও মোশারফ।’

কালশী কবরস্থান এলাকা থেকে আরো কয়েকজন পালিয়ে যায় জানিয়ে কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ‘আটকের সময় সেখান থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়। একটি ডিভাইস উদ্ধার করা হয় যেটি ওয়েট মেশিনের মতো। ওই মেশিন পরে থানায় এনে রাখা হয়। তারপর বম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের এক্সপার্টদের খবর দেওয়া হয়। তারা যখন পর্যবেক্ষণ মেশিন নিয়ে আসছিল তখন থানার ভেতর একটি বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণ ঘটার পর আমাদের চার পুলিশ সদস্যসহ পাঁচ জন আহত হন।’

কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ‘আপনারা শুনেছেন আধা ঘণ্টার মধ্যে দুটি শব্দ হয়েছে। আমাদের বম্ব ডিসপোজাল ইউনিট এক্সপার্টরা ডিভাইসগুলো স্টাডি করার পর এক্সপ্লোসিভ সমৃদ্ধ দুটি ডিভাইস নিষ্ক্রিয় করেছে। এক্সপার্ট টিম এসে পৌঁছানোর পর তারা পুরো এলাকা সিকিউরড করে। এই ব্যাপারে আমরা তদন্ত করছি, আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে। আমাদের কাউন্টার টেরোরিজম কাজ করছে।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘যেহেতু এখানে বোমসদৃশ জিনিস পাওয়া গেছে। সেটা আসলেই এক্সপ্লোসিভ। এসব কেন, কোত্থেকে এলো, কী উদ্দেশ্যে এলো- সেটা নিয়ে আমাদের তদন্ত চলছে। কেন, কী কাজে এটি ব্যবহার হতে পারে- তা আমরা তদন্ত করে দেখছি। যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের পেছনে আর কারা সহযোগী ছিল তাদের খুঁজে বের করতে আমরা কাজ করছি।’

এর আগে আজ বুধবার সকালে পল্লবী থানার ভেতরে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে পল্লবী থানার চার পুলিশ সদস্য এবং পুলিশের একজন সোর্সসহ পাঁচজন আহত হন।

আহত ব্যক্তিরা হলেন পল্লবী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইমরান (৪৮), উপপরিদর্শক (এসআই) সজীব (৩০), শিক্ষানবিশ এসআই অঙ্কুশ (২৮) ও রুমি (২৮) এবং সোর্স রিয়াজ (২৮)। আহতদের মধ্যে রুমি ও রিয়াজ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসাধীন। পিএসআই অঙ্কুশ চক্ষু হাসপাতালে আছেন। বাকি দুজন প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাসায় ফিরেছেন।

বিডি/ঢা