ধর্ষণের শিকার বিধবাকে মীমাংসার কথা বলে গণধর্ষণ

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ধর্ষণের শিকার এক বিধবাকে মীমাংসার কথা বলে ডেকে নিয়ে পুনরায় ধর্ষণ করেছে ৫ ধর্ষক।

এ ঘটনায় বিচারের আশায় ওই নারী থানায় মামলা করলে পুরো জেলায় বিষয়টি নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ ইতোমধ্যে এ ঘটনায় আকবর আলী (৫০) নামের এক অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে।

পাশবিকতার শিকার ওই নারী জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান করায় এবং ধর্ষণের বিরুদ্ধে সমাজের সবাই সোচ্চার হওয়ায় তিনি সাহস করে লোকলজ্জার ভয় না পেয়ে আইনের দ্বারস্থ হয়েছেন।

মামলার বরাত দিয়ে আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম জানান, পাশবিকতার শিকার ওই বিধবা নারী দুই সন্তানের জননী। তিনি উপজেলার বিনাইরচরের ভাই ভাই স্পিনিং মিলের শ্রমিক। গত ৭ অক্টোবর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ওষুধ কিনে স্থানীয় নৈকাহন বাজারের আনিসের মার্কেটের সামনে পৌঁছলে আলী আকবর নামে এক যুবক ওই নারীকে ডাক দিয়ে বাজারের পেছনে মাছের দোকানে নিয়ে যায়।

পরে দোকানের সাঁটার বন্ধ করে তাকে ধর্ষণ করে। ওই নারী দোকান থেকে বের হওয়ার পর বাইরে থাকা একই এলাকার মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে মোস্তফা (৫৫), একই এলাকার আনারুল (৪০) ও লিটন (৩২) নারীকে ঘটনার ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তিনি বিষয়টি খুলে বলেন।

এ সময় মীমাংসা করে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে ওই নারীকে লিটনের পুকুরপাড়ে নিয়ে গিয়ে উল্লিখিত তিনজন পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পরবর্তীতে আসামি লিটন ফোন করে শাহীন (৩২) ও তরিকুল (৩৪) নামে আরও ২ জনকে ডেকে আনলে তারাও ওই নারীকে জোর করে রাত সাড়ে ১০টায় একই এলাকার আলী হোসেনের নির্মাণাধীন ভবনের ছাদে নিয়ে ধর্ষণ করে।

ওসি জানান, এমন পাশবিকতার শিকার হওয়ার পরও বিধবা নারী লোকলজ্জায় ও ছেলেমেয়ের কথা চিন্তা করে ঘটনা গোপন করে রাখেন। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি সাহস সঞ্চার করে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে আলোচনা করে বুধবার রাতে আড়াইহাজার থানায় আলী আকবরকে প্রধান আসামি করে ৬ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সূত্র: যুগান্তর অনলাইন

বিডি/নাপ্র