পদ্মায় নৌকাডুবি: ভেসে উঠল নিখোঁজ ভাই-বোনের লাশ

ফাইল ছবি

রাজশাহী ব্যুরো:

রাজশাহী মহানগরীর উপকণ্ঠ নবগঙ্গা এলাকায় পদ্মায় নৌকাডুবির ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী সাদিয়া ইসলাম সূচনা ও তার ফুপাতো ভাই রিমনের গলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার সকাল ৬টার দিকে রাজশাহীর পবা উপজেলার নবগঙ্গা এলাকা পদ্মা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
নিহত সূচনার মামা মামুন ও রিমনের চাচা রেজাউল হক জানান, সকাল ৬টার দিকে দিকে পবা উপজেলার নবগঙ্গা এলাকা পদ্মা নদী থেকে একটু দূরে দুই ভাই-বোনের মরদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পায় স্থানীয়রা।

এ সময় খবর দিলে তারা এসে সাদিয়া ইসলাম সূচনা ও তার ফুপাতো ভাই রিমনের গলিত মরদেহ শনাক্ত করেন।

এর আগে ২৫ সেপ্টেম্বর বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে রাজশাহীর পবা উপজেলার নবগঙ্গা এলাকায় নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ হন তারা।

নিখোঁজ সাদিয়া ইসলাম সূচনা আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের (এআইইউবি) বিবিএ তৃতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী বলে নিশ্চিত করেছেন তার স্বজনরা। সূচনা ঢাকার ধানমণ্ডি এলাকায় বসবাস করতেন।

তিনি পবা উপজেলার খোলাবোনা এলাকায় চাচা জালাল উদ্দিনের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। নিখোঁজ রিমনের বাড়ি নওগাঁয়। সূচনা ও রিমন সম্পর্কে মামাতো-ফুপাতো ভাইবোন।

রাজশাহী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক জাকির হোসেন জানান, নিখোঁজ দুই শিক্ষার্থীর গলিত মরদেহ ঘটনাস্থলেই ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে নবগঙ্গা এলাকায় পদ্মা নদীতে মাঝিসহ ১৩ যাত্রী নিয়ে ইঞ্জিনচালিত নৌকা ডুবে যায়। পরে অন্য নৌকা গিয়ে মাঝিসহ ১১ জনকে উদ্ধার করে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী সূচনা ও তার ফুপাতো ভাই রিমন এখনও নিখোঁজ ছিলেন। শনিবার তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এর আগে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক জাকির হোসেন জানিয়েছিলেন, উদ্ধার হওয়া ১১ জনের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিডি/রাপ্র