পাটকল শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, আহত ২০

পাটকল শ্রমিকদের মিছিল। ছবি : প্রতিনিধি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

খুলনায় রাজপথ অবরোধকালে পাটকল শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

সোমবার বেলা ১১টায় নগরীর আটরা শিল্পাঞ্চলের ইস্টার্ন গেট এলাকায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ ২ রাউন্ড শটগান ও ৭ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহবায়ক অ্যাডভোকেট কুদরত-ই খুদা, সিপিবি নেতা এস এ রশিদ, মিজানুর রহমান বাবু, বাসদ নেতা জনার্দন দত্ত নান্টু, মো. আবুল হোসেন, মো. নওশের, শহীদুল, ওলিয়ার রহমান, রবিউল ইসলাম, আল আমিন শেখ ও জাহাঙ্গীর সরদারসহ ১৫ জনকে আটক করেছে।

বন্ধ রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল আধুনিকীকরণ করে দ্রুত চালু, দুর্নীতি-ভুলনীতি-লুটপাট বন্ধ, শ্রমিকদের বকেয়া টাকা এককালীন পরিশোধ ও ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ ১৪ দফা দাবিতে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদ এই অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেয়।

আন্দোলনকারীদের দাবি পুলিশের হামলায় আহমেদ তাসনিম শ্যামল, নারী শ্রমিক নাজমা খাতুন, খাদিজা বেগম, হাফিজা বেগম, সুমি রায়, শেফালী বালা, সুচিত্রা বিশ্বাস, সাফিয়াসহ অন্তত ১০-১২ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে আহমেদ তাসনিম শ্যামলকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অপরদিকে পুলিশ জানায়, সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের ৮-৯ জন সদস্য আহত হয়েছে। এ সময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশ ২ রাউন্ড শটগান ও ৭ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) এডিসি (উত্তর) সোনালী সেন বলেন, শ্রমিকেরা পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তৎপর হয়।

পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের নেতা গণসংহতি আন্দোলন খুলনা জেলা কমিটির সমন্বয়ক মুনীর চৌধুরী সোহেল বলেন, পুলিশ বিনা উস্কানিতে শ্রমিকদের ওপর হামলা চালিয়েছে। শ্রমিক নেতাদের দীর্ঘ সময় ইস্টার্ন মিলগেটে আটকে রাখে। সেখানে সাধারণ শ্রমিকদের লাঠিপেটা করে। এ সময় ১০-১২ জন শ্রমিক গুরুতর আহত হয়।

খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রবীর কুমার বিশ্বাস বলেন, সংঘর্ষের সময় ঘটনাস্থল থেকে ১৫ জনকে আটক করা হয়েছে। এ সময় পুলিশের ৮-৯ জন সদস্য আহত হয়েছে।

এদিকে খুলনায় বন্ধকৃত রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের অবসর ও অবসায়নকৃত (গোল্ডেন হ্যান্ডশেক সুবিধাসহ) সকল বকেয়া পরিশোধ শুরু হয়েছে। সোমবার দুপুরে নগরীর খালিশপুর প্লাটিনাম জুবিলি জুট মিলস অফিসার্স ক্লাব চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে শ্রমিকদের চূড়ান্ত পাওনার চেক এবং সঞ্চয়পত্র প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। প্রাথমিকভাবে প্লাটিনাম জুট মিলস লিমিটেডের ৪৫ জন শ্রমিককে চেক ও সঞ্চয়পত্র হস্তান্তর করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, অবশিষ্ট শ্রমিকদের পাওনা ২১৬ কোটি ২৮ লাখ ৬ হাজার ২৪ টাকা শ্রমিকদের ব্যক্তিগত একাউন্টে ও ২১৪ কোটি ৮৪ লাখ ৪২ হাজার ৬৭১ টাকা তিন মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে বিতরণ করা হবে।

বিডি/জেডএইচ