সাভারে একদিনে তিন ধর্ষণ মামলা

সাভার প্রতিনিধি:

সাভারে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণ, ৫ বছর বয়সী দুই শিশুকে ধর্ষণচেষ্টা ও বিয়ের প্রলোভনে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে সাভার মডেল থানায়। বুধবার দিন ও রাতে মামলাগুলো দায়ের করে ভুক্তভোগীর পরিবার।

এসব ঘটনায় পৃথক অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের মধ্যে ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাভার মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।

গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতারকৃতরা হল- নওগাঁ জেলার পত্নীতলার ডাংগা গ্রামের মৃত মিরাজ মণ্ডলের ছেলে মহিদুল, একই জেলার মহাদবেপুর কাটাবাড়ি এলাকার আতোয়ারের ছেলে তরিকুল এবং দিনাজপুর জেলার বোচাগঞ্জ শুকদেবপুরের সোলমান আলীর ছেলে মোজাহারুল।

অপরদিকে দুই শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত আসামির নাম মনোয়ারুল ইসলাম (২১)। সে রংপুর জেলার মিঠাপুকুর এলাকার ঠাকুরবাড়ি গ্রামের নয়া মিয়ার ছেলে। এছাড়া বিয়ের প্রলোভনে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত আসামির নাম মোজাহিদ (২৭)।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে সাভারের ভাগরপুর এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় ঘরে ঢুকে ছয়জন গৃহবধূকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে সাভার মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন। পরে পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করে।

অপরদিকে গত ২৮ সেপ্টেম্বর বিকালে সাভারের পৌর এলাকা আনন্দপুরে ৫ বছর বয়সী দুই শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করার অভিযোগে এক যুবককে অভিযুক্ত করে সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে শিশু দুটির পরিবার।

গত বুধবার মামলাটি দায়ের করা হয়। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে এ ঘটনায় অভিযুক্ত মনোয়ারুল ইসলামকে গ্রেফতার করে। অভিযুক্ত মনোয়ার সাভারের দোয়েল গার্মেন্ট নামে একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করে।

এছাড়াও সাভারের হেমায়েতপুরের যাদুরচর এলাকায় বিয়ের প্রলোভনে এক তরুণীকে (২২) ধর্ষণের অভিযোগে মোজাহিদ নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে ভুক্তভোগী তরুণী বাদী হয়ে মোজাহিদকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করার পরই পুলিশ তাকে আটক করে।

সাভার মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, গ্রেফতারকৃত সব আসামিকে বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিডি/সাপ্র