হাজী সেলিম পুত্র ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষীকে আদালতে আনা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের পুত্র ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের বহিষ্কৃত কাউন্সিলর ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে আদালতে হাজির করা হয়েছে। নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় তাদের আদালতে আনা হয়েছে।

ইরফান সেলিকে আজ ২৮ বুধবার সকালে আদালতে হাজির করা হয় বলে আদালত সূত্র জানিয়েছেন। তাকে কারাগারের গারদে রাখা হয়েছে।

সাংসদ সদস্য হাজী সেলিম পুত্র ইরফান সেলিম গত ২৭ অক্টোবর বিকেলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে সাজা হওয়ায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় তাকে কাউন্সিলর পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন।

গত ২৫ অক্টোবর রোববার সন্ধ্যার পর রাজধানীর কলাবাগান ট্রাফিক সিগন্যালের অদূরে একটি মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় একটি জিপ গাড়ি।

এর পর ‍‍‍‍‍‘সংসদ সদস্য স্টিকার’ লাগানো গাড়িটি থেকে নেমে আরোহীরা মোটরসাইকেল আরোহী নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেন।

ওই ঘটনায় গাড়ির আরোহী ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী মো. সেলিমের ছেলে মোহাম্মদ ইরফান সেলিম, গাড়িচালক মিজানুর রহমান ও দেহরক্ষী জাহিদকে গ্রেপ্তার করা হয়। ইরফান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর।

ঘটনার জের ধরে গত ২৬ অক্টোবর সোমবার পুরান ঢাকার হাজী সেলিমের পুত্র ইরফান সেলিমের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে যৌথ বাহিনীর সদস্যরা।

অভিযান শেষে ইরফান সেলিমকে মদ্যপানের অপরাধে এক বছর এবং অবৈধভাবে ওয়াকিটকি রাখার দায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তাছাড়াও ইরফান সেলিমের দেহরক্ষী জাহিদকে ওয়াকিটকি রাখার দায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।